ছবিসহ ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম দেখুন ১০০% নির্ভুল

সম্মানিত ব্যাংকের গ্রাহক বৃন্দ ছবিসহ ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম দেখুন যা একবার দেখলে আর জীবনেও আপনাকে এই ব্যাকের চেক লেখার নিয়ম সম্পর্কে জানতে হবে না। কেননা এই পোষ্টে চেকের যাবতীয় খুঁটিনাটি নিয়ে তুলে যার হয়েছে।

{getToc} $title={ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম দেখুন সহজেই}

আমরা যারা নতুন কিংবা যারা অনেক দিন যাবত কোনো চেক লিখি না, তাদের ক্ষেত্রে ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম জানাটা খুব জরুরি। আমার অনেক বন্ধুদের দেখেছি তারা হাতে চেক বই নিয়ে আমাকে খুঁজছে চেকটা লিখার জন্য। তাদের কথা চিন্তা করেই মূলত এই পোষ্টটা।

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

চেক কি?

আমরা সকলেই জানি চেক হল একটা দলিল যার মাধ্যমে যে কোনো ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করা হয়।

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম কেন জানবো?

এই প্রশ্নটা আপনার মাথায় ঘুরপাক খেতে পারে, আরে এই ব্যাংক চেক লেখার নিয়মও জীবনে জানতে হবে।  হে, অবশ্যই জানতে হবে। একটু প্রশ্ন করে দেখুন তো আপনি কি জানেন একটা চেক বইয়ের মেয়াদ কতদিন? 

আপনি কি জানে এই চেকে পজিটিব পে সম্পর্কে? যদি না জানেন তাহলে পোষ্টটি মনোযোগ সহকারে দেখুন আমি ১০০% গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারে জীবনে ভুলবেন না, চাইলে আপনি যে কোনো ব্যাংকের চেক যটফট লিখে ফেলতে পারবেন।

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ভাষা নির্বাচন

আপনি যে কোনো ব্যাংকের চেক লিখতে বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে পারেন আবার ইংরেজি ভাষা ব্যবহার করতে পারেন। 

এটা নির্ভর করে আপনার রুচির উপর। তাছাড়া যারা বাংলা এবং ইংরেজিতে চেক লিখতে যান তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে সমস্যায় পড়তে হয় তা হয় সংখ্যাকে বাংলাতে বা ইংরেজিতে লেখা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। 

উদারহরণ- এক থেকে একশত পর্যন্ত বাংলাতে লিখতে সমস্যা আবার কারো 1-100 পর্যন্ত ইংরেজি লেখার সমস্যা। চিন্তার কোনো কারণ নেই এ সমস্যা সমাধানের জন্য একটা লিংক দিয়ে দিব।

লিখার ধরণ

চেকটি আপনি কি দিয়ে লিখতে চান সেটাও একটা প্রশ্ন, কেউ কেউ হাতে লিখতে বেশি পছন্দ করেন আবার কেউ কেউ কম্পিউটার দিয়ে টাইপ করে লিখতে পছন্দ করেন। 

আমার জানা মতে, আপনার হাতে লিখে দিলেই সব চেয়ে ভালো হবে। যদিও আপনি টাইপিয়ে অভিজ্ঞ না। বাংলাদেশের শতকরা ৯৫% লোকই হাতে লিখে দেয়।

ভোটার আইডির ফটো কপি

এখানে ভোটার আইডি কার্ডের ফটো কপি তখনই লাগবে যখন আপনার টাকাটা অন্য কাউকে যেমন-আপনার বন্ধু-বান্ধব অথবা কর্মচারী। যদি ছেলে বা মেয়ে দিয়ে টাকা তুলেন সেক্ষেত্রে ব্যাংকের বাপের পরিচয় দিলেই হবে।

পজিটিভ পে

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে পজিটিভ পে টা কি?পজিটিব পে হল মালিকের অনুমোদনকে বোঝায়। অন্যের চেক হলে পজিটিভ পে লাগবে যদি টাকার পরিমাণ=৫০,০০০/- টাকার বেশি হয়। তার কম হলে পজিটিভ পে লাগবে না।

কাটাকাটি/ঘষামাজার

যদি চেকটিতে কাটাকাটি/ঘষামাজা হয় তাহলে তার মাঝে আবার লেখা যাবে না। প্রয়োজনে একটু উপরে বা নিচে লেখুন। যাতে করে ব্যাংকার সহজেই বুঝতে পারে আপনি চেকে কি লিখেছেন।

চেকের মেয়াদ

অনেক সময় দেখা যায়, যারা নতুন তারা একটি চেক লেখার পর যদি সেই ওই চেকটি না ওই দিন না নিয়ে যায় তারা মনে করে যে, আবার নতুন করে চেক লিখতে হবে। 

আসলে বিষয়টি তেমন না। যে কোনো চেক লেখা দিন থেকে ৬ মাস পর্যন্ত যে কোনো সময় চেক ব্যবহার করতে পারবেন। তারিখ যাই দেন না কেন সময়সীমা কিন্তু ৬ মাস পর্যন্ত।

উদাহরণ- ধরুন, আপনি আজকে একটি চেক লিখলেন, তারপর চেক নিয়ে ব্যাংকে আসলেন দেখলেন ব্যাংক বন্ধ অথবা এসে দেখলেন অনেক বড় লাইন আপনার সময় নষ্ট হচ্ছে, 

তাহলে তারপরের দিন চিক নিয়ে ব্যাংকে যাবেন। তাই বলে কখনো চেকের তারিখ পরিবর্তন করতে যাবেন না। যে তারিখ লিখেছেন সেই তারিখই হবে।

সর্তকতা অবলম্বন

যে কোনো কিছু লেখার ক্ষেত্রে সর্তকতা কিন্তু পূর্বশর্ত। যা লিখবেন তা যেন পুনরায় আবার কাটাকাটি না করতে হয়। তাতে করে চেক টি সুন্দর দেখাবে, আর ব্যাংকারের প্রশ্ন করা থেকে রেহাই পাবেন যদি সে চেকে কি লিখেছে তা না বোঝে।

কলম

কলম নির্বাচন করাটা খুবই খুরুত্বপূর্ণ। চেকে লিখতে গেলে দেখা যায় অনেক কলম ঠিক মতন কালি ছাড়ে না, যার ফলে চেকটি নষ্ট হয়, অনেক কাটাকাটি হয়। এই ক্ষেত্রে কলম টি চেক করে নিবেন।

এবার আমরা ব্যাংকের চেকটি কয়েকটি ধাপে সুসম্পন্ন করব, ধাপ গুলো পর্যাক্রমে দেখুন আর খুব মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

ছবিসহ ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

সোনালী ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

রূপালী ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ডাচ বাংলা ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

কৃষি ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ইসলামী ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

NCC ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম বা ধাপ

#ধাপ ১

তারিখ লিখবেন, সকল ব্যাংকের চেকে দেখা যায় সাধারণত উপরে ডান পাশে তারিখ লেখার বক্স বা খালি ঘর থাকে, সেখানে তারিখ লিখে দিবেন। [ইংরেজি সালের তারিখ মনে থাকে যেন]

#ধাপ ২

Pay to ফাঁকা স্থানে আপনি যদি নিজে আপনার টাকা উঠান তাহলে নিজে দিবেন। আর যদি ইংরেজিতে লিখতে চান তাহলে self দিতে পারেন। অথবা cash তুললে ক্যাশ লিখতে পারেন।

#ধাপ ৩

এখানে টাকার পরিমাণ টা কথায় লিখে ‍দিবেন যদি ইংরেজি দেন তাহলে ইংরেজিতে আর যদি বাংলায় দেয় তাহলে বাংলাতে। 

বাংলাতে ‘টাকা’ লেখা থাকবে আর ইংরেজিতে TK/The Sum of Money/The Sum of Taka লেখা থাকবে সেটা ব্যাংকের ক্ষেত্রে আলাদা।

#ধাপ ৪

স্বাক্ষর দিবেন। আপনি যে স্বাক্ষর দেন, ঠিক সেই স্বাক্ষর দিবেন। তাতে করে আপনার ভর্তি সময় যে স্বাক্ষর দিয়েছেন তাতে ব্যাংকাররা মিলিয়ে দেখবে।

#ধাপ ৫

চেকের পিছনে কি লিখতে হয়? এটা অনেকেই জানে না। যদি আপনি নিজে টাকা উঠান সে ক্ষেত্রে তাহলে  চেকের পিছনে কিছু লিখতে হবে না,

আর ‍যদি অন্যকে দিয়ে চেক দিয়ে ব্যাংক থেকে টাকা উঠান তাহলে চেকের পিছনে আরো দুইটা স্বাক্ষর দিতে হবে আর সাথে মোবাইল নাম্বার যুক্ত করলে আরো ভালো হয় তবে কিছু কিছু ব্যাংক মোবাইল নাম্বার চেয়ে থাকে।

চেক সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন:

  • চেকের পিছনে কি লিখতে হয়? উত্তর: দুটি স্বাক্ষর করতে হবে। সাথে মোবাইল নাম্বার যোগ করতে হবে।
  • ব্যাংক চেকের মেয়াদ কত দিন? উত্তর: ৬ মাস
  • চেকে কতগুলো স্বাক্ষর দিতে হবে? উত্তর: ৩টি স্বাক্ষর লাগবে।
  • সকল ব্যাংকের চেক কি একই রকম? উত্তর: হে, ততে কিছুটা ব্যতিক্রম আছে।
আরো পড়ুন-

TheSundor

প্রিয় পাঠকবৃন্দ দি সুন্দর এর পক্ষ থেকে আপনাকে জানাই শুভেচ্ছা এবং সালাম আসসালামু আলাইকুম আপনারা আপনি কেমন আছেন? নিশ্চই ভালো আর নতুন নতুন মজার তথ্য পেতে দি সুন্দরের সাথেই থাকুন। youtube linkedin instagram facebook twitter pinterest

Post a Comment

Previous Post Next Post