সিভির ছবি: প্রফেশনাল ভাবে কেমন ছবি থাকা উচিৎ?

ভালো একটা চাকুরির জন্য কেমন প্রফেশনাল সিভির ছবি থাকা প্রয়োজন একটু বিস্তারিত জানা যাক-একজন নিয়োগদাতা যেকোনো চাকরী প্রার্থীর সিভিটা হাতে নিয়ে সহজেই প্রথমেই মনের অজান্তে আপনার যে জিনিসটা লক্ষ্য করে তা হল, এই নামের ব্যক্তিটি আসলে দেখতে কেমন? যদিও চেহারা কোন ইস্যু না আপনার কাঙ্খিত জব পাওয়ার জন্য। তারপরেও এটা একটা প্রধান সমস্যা বলা যেতে পারে।{getToc} $title={সিভির ছবির বিস্তারিত}

সিভির ছবি

সিভির ছবি কেমন হতে হবে তার বিস্তারিত:

ওকে যাই হোক,

সিভির ছবি কেমন হতে হবে, তার কোনো বিশেষ নিয়ম নেই। তবে বর্তমান সময়ে আমাদের দেশে 'পাসপোর্ট' সাইজের ছবি ফর্মাল ছবি ব্যাপক জনপ্রিয় যা সবচেয়ে বেশী ব্যবহার করা হয়! সেই হিসাবে আপনাকেও একটা প্রফেশনাল 'পাসপোর্ট' সাইজের ছবি ব্যবহার করতে হবেই।

{alertSuccess}আপনি পড়তে পারেনচাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম

তো চলুন জেনে নেই 'পাসপোর্ট' সাইজের ছবির পরিমাপটা কেমন হয়।

Width: 1.5 inche 

Height: 1.9 inche 

Resolution: 300 Pixel 

পাসপোর্ট সাইজের সিভির ছবি

পাসপোর্ট সাইজ ছবির মাপ নির্ধারণ হয় মূলত ইঞ্চিতে । ব্যাকগ্রাউন্ড কালার কেমন হবে? এটা অনেকেরই প্রশ্ন থাকে। তবে সচারাচর দেখায় যায় একটি নরমাল ছবিকে পাসপোর্ট সাইজ ছবিতে তৈরি করে পেছনের ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড কালার যা খুশি দিয়ে থাকে (যেমন: নীল, আকাশী, ধূসর কালো, লাল, ধূসর সাদা ইত্যাদি)। তবে ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড কালারটি অবশ্যই সাদা দিয়ে মার্জিন করলেই ভালো হয়।নীল হতে পারে। তবে হালকা, হালকা 'নীল' হলেও চলে। হালকা মানে একেবারেই হালকা রঙ। তাছাড়া কিছু কিছু পোশাক আছে যেগুলোতে ব্যাকগ্রাউন্ড কালার ব্যতিক্রম হয়ে থাকে। সেটি ছবি উপর নির্ভর করে। তবে সিভির ছবিতে আপনাকে অবশ্যই প্রফেশনাল এবং হাস্য-উজ্জল লুক দিতে হবে। এটা মাথায় রাখতে হবে।

{alertSuccess}আপনি পড়তে পারেনবিটকয়েন কি ও কেন

সিভির ছবিতে পোশাক নির্বাচন

এবার আসা যাক, পোশাক নির্বাচন প্রসঙ্গে-

সিভিতে দেয়া আপনার ছবিতে পোশাক চাকুরি পেতে একটা বড় ভূমিকা রাখে। এই ছবির পোশাকের মাধ্যমে আপনার রুচিবোধ কেমন তা সহজেই অনুমান করা করে ফেলতে নিয়োগদাতা। চলুন দেখি এটা নিয়ে কিছু পয়েন্ট উল্লেখ করা যাক। আপনার পোশাক আসলে কেমন হওয়া উচিৎ আর কেমন অনুচিত-

# পুরুষ-

১। অবশ্যই কোনো ধরনের টি শার্ট পড়া ছবি সিভিতে দেয়াই যাবে না।
সিভির ছবি

২। ফুল হাতা শার্ট পড়া ছবি দেয়া যেতে পারে। তবে, টাই এবং ব্লেজার ব্যবহার করলে আপনাকে একটু ভাল নজরে দেখাবে এবং এমন কি গুরুত্বও বাড়াবে।
cv photo

৩। সেলফি মতো স্টাইল এর তুলা ছবি সিভিতে কোনো ভাবেই ব্যবহার করবেন না।

৪। ছবিটি ফুটিয়ে তোলার ক্ষেত্রে 'টাই' এবং 'শার্ট' এর বিপরীত রঙের ব্যবহার করলে ভাল দেখাবে। এই ক্ষেত্রে, আপনাকে চ্যাক শার্ট ব্যবহার না করে এক রঙের শার্ট ব্যবহার করাই সর্বোত্তম। তবে, 'টাই' আপনার ইচ্ছা মত যে কোনটা ব্যবহার করতে পারেন অনায়াসে। মনে রাখবেন, কোনো ধরনের 'পার্টি টাই' ভুলেও ব্যবহার করবেন না।

৫। ভুলেও কোন ধরনের 'অলঙ্কার' (যেমন: গলার মালা, মাথায় রং) ব্যবহার করবেন না! যদি আপনার ব্যবহার করার অভ্যাস থাকেই থাকে তাহলে, সেগুলো খুলে রেখে ছবি তুলতে হবে অবশ্যই।

৬। একেবারেই সোজা-সুজি হয়ে ছবি না তুলে, একটু হালকা এক পাশ হয়ে ছবি তোলা ভালো হবে। এতে করে  আপনার কান দুটি কিছুটা দেখা যাবে।

# নারী-

নারীদের প্রসঙ্গে যদি আসে অনেকেই ধর্ম নিয়ে প্রশ্ন তুলে থাকে। এটা মূলত যার যার রুচির ব্যাপার। তবে এখানে কোন নির্দিষ্ট ড্রেস কোড নেই। তবে, কিছু কিছু বিষয়ে নিয়ম মেনে চলা ভালো হবে-

১। নিজের সাথে মানায় এমন সুন্দর পোশাক নির্বাচন করুন যাতে আপনার সম্পর্কে ভালো এটা পজিটিভ ধারণা । নিয়োগদাতা পায়। তবে, অবশ্যই টি শার্ট ব্যবহার করা যাবে না।

২। যদি ধর্মীয় (যথা:ইসলাম) হিজাবে অভ্যস্ত থাকেন আপনার তাহলে আপনি হিজাবটা ভাল করে পরে নিবেন যেন রুচিশীল মনে হয়।

৩। যদি ওড়না ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কিছুটা শালীনতার দিকে লক্ষ্য রাখবেন।

৪। একদম সোজা-সুজি হয়ে ছবি না তুলে একটু হালকা এক পাশ হয়ে ছবি তুলুন এতে করে আপনার। এতে করে আপনার কান কিছুটা দেখা গেলেই হবে।।

৫। ব্যাকগ্রাউন্ড কালার-

এই ক্ষেত্রে হালকা, হালকা 'নীল' হলেই ভালো। হালকা মানে একে বারেই হালকা। সাদাও হতে পারে। তবে, এটা নির্ভর করবে, আপনি কি ধরনের এবং কি রঙ্গয়ের পোশাক পরেছেন তার উপর।

৬। ভুলেও সেলফি স্টাইলে তুলা যেকোনো ধরনের ছবি সিভিতে ব্যবহার করবেন না দয়া করে।

৭। মেয়েদের বেলায় প্রায়ই দেখা যায় অনেকেরই চুল সামনে হালকা ঝুলে থাকে, এতে আপনার উদাসীনতা প্রকাশ পায়। সুতরাং বুঝতেই পারছেন চুলের কিছু নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিৎ হবে। চুলগুলো এমন ভাবে রাখবেন যাতে করে আপনার কান দুটো হালকা বুঝা যায় আর দেখা যায়।

আর একটা ছোট্ট বিষয় হলো-

ছেলেরা যেমনই হোক, অনেক মেয়েরা তাদের ফর্মাল ছবি তুলতে কিছুটা বিব্রত বোধ করে থাকে। এ ক্ষেত্রে, চেহারার মধ্যে একটা বিরক্তকর ভাব থেকে যায় আর মাঝে মাঝে মনে হয় যেন সে অপ্রস্তুত ছিল ছবি তুলতে। এই ধরনের সামান্য ছোট-খাট বিষয়গুলো দেখলে একজন নিয়োগ দাতার মনে আপনার প্রতি আগ্রহ সহজেই নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

আর একটা গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হচ্ছে, মেইল এ যে সফট কপি সিভি পাঠিয়ে থাকেন সেটাতে ছবি যুক্ত করে দিতে হবে অবশ্যই। তবে হার্ড কপি সিভিতে ছবি আলাদা যুক্ত করতে হবে কিন্তু।

স্বাক্ষরের বেলায় হচ্ছে সফট কপি সিভিতে কোনো স্বাক্ষরের দরকার হয় না। কিন্তু হার্ড কপি সিভিতে অবশ্যই অবশ্যই স্বাক্ষর দিতে হবে এমন কি তারিখসহ।

পরিশেষে
এতোক্ষণ যা তুলে ধরলাম, এইগুলো একে বারেই ছোট্ট ইস্যু। কিন্তু সিরিয়াস বিষয়। আশা করি, যারা এতো দিন এই ইস্যুগুলাতে উদাসীন ছিলেন। এখন থেকে কিছুটা সতর্ক হবেন সতর্ক।

এখনকার বেশীরভাগ ছবিই ডিজিটাল এর মাধ্যমে তোলা হয়। তাই একবার ছবি তুলার পরে তা, অবশ্যই দেখে নিবেন। দরকার হলে ২/৩ বার এমন কি কয়েকবার তুলে ভাল ছবি যেটা মনে হবে সেটা নির্বাচন করবেন। উপরের ছবিগুলো দেখে কিছু ধারণা নিতে পারেন।

ভাল থাকুন। আজ এই পর্যন্তই। দোয়া করি যাতে সহজেই আপনার চাকরিটা হয়ে যায়। পোষ্টটি শেয়ার করে রেখে দিবেন পরে যখন ছবি তুলবেন তখন কোন কোন বিষয় এড়িয়ে চলবেন তা সহজেই বুঝেতে পারবেন।

TheSundor

প্রিয় পাঠকবৃন্দ দি সুন্দর এর পক্ষ থেকে আপনাকে জানাই শুভেচ্ছা এবং সালাম আসসালামু আলাইকুম আপনারা আপনি কেমন আছেন? নিশ্চই ভালো আর নতুন নতুন মজার তথ্য পেতে দি সুন্দরের সাথেই থাকুন। youtube linkedin instagram facebook twitter pinterest

Post a Comment

Previous Post Next Post